বন্ধু তোমায় এ গান শোনাবো বিকেল বেলায় | শুভ বন্ধু দিবস

“কাউকে সারাজীবন কাছে পেতে চাও। তাহলে প্রেম দিয়ে নয় বন্ধুত্ব দিয়ে আগলে রেখো। কারন প্রেম একদিন হারিয়ে যাবে কিন্তু বন্ধুত্ব কোনদিন হারায় না” 

মানুষ সামাজিক জীব, সে একা চলতে পারে না। কথাটা একটু যদি অন্যভাবে বলি, মানুষ কোন বন্ধু ছাড়া ভালোভাবে বেঁচে থাকতে পারে না। বন্ধু শব্দটার সাথেই আমাদের অন্যরকম আবেগ জড়িত। বন্ধুত্বের সংজ্ঞা এক একজনের কাছে এক এক রকম। বন্ধু সবকিছুর উর্ধ্বে। নিজেদের মধ্যকার  স্নেহ, সহানুভূতি, সহমর্মিতা, সততা, পরার্থপরতা, পারস্পরিক বোঝাপড়া এবং সমবেদনা নিয়েই বন্ধুত্ব।

 

ক্লাসে কোন একটা ব্যাপার নিয়ে একপাশে কয়েকজন খুব হট্টোগল করছে। হঠাৎ ক্লাসে কোন এক স্যারের আগমন। যারা চিল্লাচিল্লি করছে তাদের আজ খবর আছে। কিন্তু ক্লাসে কেউ কারো নাম বলছে না। মার খেলে সবাই একসাথে খাব কিন্তু নাম বলব না কারো। ক্লাসে স্যার পড়া জিজ্ঞাসা করলে পাশ থেকে কিংবা পরীক্ষার হলে চুপিচুপি পাশের বন্ধুকে একটা প্রশ্নের উত্তর বলে দেওয়া। এটার নামই বন্ধুত্ব।

পুরো পৃথিবী এক দিকে আর আমি অন্য দিক 
সবাই বলে করছো ভুল আর তোরা বলিস ঠিক 
তোরা ছিলি, তোরা আছিস, জানি তোরাই থাকবি 
বন্ধু বোঝে আমাকে, বন্ধু আছে আর কি লাগে? 

ছোটবেলায় আমরা একজন আরেকজনের সাথে বন্ধুত্ব-বন্ধুত্ব খেলতাম। আঙ্গুলের সাহায্যে এক বিশেষ কায়দায় বন্ধুর সাথে হ্যান্ডশ্যাক করতাম এবং তখন থেকেই দুইজন শপথ নিতাম সবসময় একসাথে থাকব। সে আমার প্রাণের দোস্ত। নিজের খুব কাছের ফ্রেন্ড যখন অন্য কারো সাথে খুব হেসে হেসে কথা বলত, তখন খুব রাগ হত। মনে হতো, ওকে একটা ঘুষি মেরে নাক ফাটিয়ে দেই। টিফিন টাইমে চুরি করে আরেক বন্ধুর টিফিন খেয়ে ফেলা, কারো একটা জিনিস লুকিয়ে রেখে একটু ভয় দেখানো, এসব কাজ বন্ধুদের নিয়মিত কর্ম ।

তোমায় আমি রাখতে চাই না, থাকতে চাই না, 
ঢাকতে চাই না, চাখতে চাই না 
তেলের মত মাখতে চাই না, 
চাইছি তোমার বন্ধুতা । 

যখন আমাদের একজনের সাথে অন্য একজনের খুব ভালো বন্ধুত্ব হয়ে যায়, তখন আসলে সে নিজের পরিবারের একজন হয়ে যায়। সে আমার আপন ভাই কিংবা বোন। তার পরিবারের সমস্ত হাসি যেন আমার হাসি। তার পরিবারের সমস্ত কষ্ট আমার কষ্ট।

আমি একটি বন্ধু খুঁজছিলাম যে আমার 
পিতৃশোক ভাগ করে নেবে, নেবে 
আমার ফুসফুস থেকে দূষিত বাতাস; 

বন্ধুত্ব এমন একটা জিনিস যা কখনো টাকা দিয়ে কিনতে পারা যায় না। গোলাপের সৌন্দর্য মানুষকে মুগ্ধ করে। গোলাপ একটা সময় নষ্ট হয়ে যায় কিন্তু খাঁটি বন্ধুত্ব কখনো নষ্ট হয় না। বন্ধুর অন্তর আর আমার অন্তর সে তো একই। বন্ধু যদি সকাল হয়, আমি সেই সকালের শিশির।

বন্ধু তোমার চোখের মাঝে চিন্তা খেলা করে 
বন্ধু তোমার কপাল জুড়ে চিন্তালোকের ছায়া, 
বন্ধু তোমার নাকের ভাঁজে চিন্তা নামের কায়া। 

বন্ধু আমার মন ভাল নেই, তোমার কি মন ভাল? 
বন্ধু তুমি একটু হেসো, একটু কথা বলো।

বন্ধুর বার্থডে মানে ত অন্যরকম কিছু একটা। গোপনে অন্য বন্ধুরা বার্থডের কয়েকদিন আগে থেকেই নিতে থাকে নানা রকম প্রস্তুতি। কেনা হয় বন্ধুর পছন্দের নানা রকম গিফট। তার বার্থডের দিন সবাই মিলে দলবল নিয়ে বন্ধুর বাসায় উপস্থিত হয়ে তাকে চমকে দেওয়ার মাঝে যে আনন্দ, তা আসলে কোটি টাকায়ও পাওয়া সম্ভব না। দলবল নিয়ে সব বন্ধুরা মিলে কোথাও ঘুরতে যাওয়া, হ্যাঙ্গঅাউট করা, কোথায় খেতে যাওয়া – এই কাজগুলো আমরা অনেক করি। একসাথে সব বন্ধুরা মিলে এসব কাজের মাঝে রয়েছে এক অন্য রকমের সুখ।

তোমাদের মাঝে কি কেউ আছে বন্ধু আমার? 
তোমাদের মাঝে কি কেউ আছে পথ ভোলা? 
তবে বন্ধু নৌকা ভেড়াও মুছিয়ে দেবো দুঃখ সবার। 
তবে বন্ধু নৌকা ভেড়াও মুছিয়ে দেবো দুঃখ জ্বালা।

ঝুম বৃষ্টির দিনে বন্ধুর কথা খুব মনে পড়ে। বন্ধুরা মিলে যদি এই বৃষ্টিতে মাঠে একসাথে ফুটবল খেলতে পারতাম কিংবা একসাথে বৃষ্টিতে ভিজতে পারতাম!

তুমি এলে মেঘ বৃষ্টি সবই মুল্যবান।
আমাদের কাঠের চেয়ার
যেদিকে শহর নেই, শ্রাবণের মেঘমল্লার
মাতাল নৌকার মতো ভেসে যায় ভবিষ্যৎহীন।

প্রকৃতির নতুন আগমনে কিংবা বিষন্নতায়, রোদ বৃষ্টি ঝড়ে বন্ধু সবসময়ই বর্তমান। যে কোন পরিবেশে, যে কোন মুহুর্তে খুব কাছের প্রিয় কোন বন্ধুকেই আমাদের মনে পড়ে। মন চায় বন্ধু এসে আমার হাতটা একটু ধরুক, একটু পাশে বসে থাকুক।

মেঘের মধ্যে মেঘ হয়ে যাই, ঘাসের মধ্যে ঘাস 
বুকের মধ্যে হলুদ একটা পাতার দীর্ঘশ্বাস।
তুমি আমার পাশে বন্ধু হে, 
বসিয়া থাকো 
একটু বসিয়া থাকো। 

বন্ধুত্বের ভিতর থেকেই অনেক সময় হয় প্রেম ভালোবাসা। কার প্রেমে কখন কে পড়ে যায় বলা যায় না। প্রেম কখনো বলে কয়ে আসে না। বন্ধু হয়ে যায় একসময় চিরদিনের চলার সাথী।

আলোর পরশে ভোর হয়ে যাবে এই রাত 
কোন দিন ভুলে ছেড়ো নাকো তুমি এই হাত 
ভুল হারানো দিনে তাকে তুমি সাথে নিও। 
ভুলো না তারে ডেকে নিতে তুমি। 
বন্ধু তোমার পথের সাথীকে চিনে নিও 
মনের মাঝেতে চিরদিন তাকে ডেকে নিও। 

আমাদের এ জীবনের অনেক গল্প, অনেক গান – সবটাই বন্ধুদের জন্য। বন্ধু, সেই প্রিয় মুখটি, সেই প্রিয় মানুষটি যদি কাছে না থাকে কাছে, তবে হয়না কবিতা লিখা, হারিয়ে যায় গিটারের সুর। মনটা হয়ে উঠে বিষন্ন।

একলা ঘর, ধূলো জমা গীটার 
পড়ে আছে লেলিন, পড়ে আছে শেক্সপিয়ার, 
টিশার্ট জিন্সগুলো দেরাজে আছে 
শুধু মানুষটা তুই নেইতো, নেইরে কাছে 
ও বন্ধু তোকে মিস্‌ করছি ভীষণ 
তোকে ছাড়া কিছুই আর জমেনা এখন। 

মানুষের বন্ধুত্বের কোন বয়স নাই। আমার বন্ধু আমার থেকে বয়সে বড়ও হতে পারে, আবার ছোটও হতে পারে। কিন্তু এক এক বয়সের বন্ধুত্ব এক এক রকম। স্কুল-কলেজ লাইফের বন্ধুত্ব সবচেয়ে জোরালো হয়। বড় হয়ে যাবার পর হঠাৎ একদিন রাস্তায় কিংবা অফিসের পাশে কোন বন্ধুকে দেখলে অন্তরে অালাদা একটা অনুভূতি হয়। দুই বন্ধু মিলে হারিয়ে যাওয়া হয় স্মৃতির কোন এক রাজ্যে।

হঠাৎ রাস্তায় অফিস অঞ্চলে 
হারিয়ে যাওয়া মুখ চমকে দিয়ে বলে 
বন্ধু কি খবর বল 
কত দিন দেখা হয়নি।
সময় চলে গেছে এবং চলছে 
চলতি জীবনের গল্প বলছে 
পাল্টে গেলি তুই,
আমিও পাল্টে গিয়েছি
মাঝ পথে হাতে হাতে 
বন্ধু কি খবর বল কত দিন দেখ হয়নি।

পড়ালেখা শেষ করে বন্ধুরা এক এক জায়গায় চলে যাব জীবন ও জীবিকার তাগিদে। এক এক জন এক এক অবস্থায় থাকবে। কিছু বন্ধুত্ব হয়ত মরে যাবে, কিছু অভিমান হারিয়ে যাবে। তবুও টিকে থাকবে যুগ যুগ ধরে মানুষের বন্ধুত্ব।

কফি হাউজের সেই আড্ডাটা আজ আর নেই, আজ আর নেই 
কোথায় হারিয়ে গেল সোনালী বিকেলগুলো সেই, আজ আর নেই। 

সেই সাতজন নেই আজ টেবিলটা তবু আছে, সাতটা পেয়ালা আজও খালি নেই 
একই সে বাগানে আজ এসেছে নতুন কুঁড়ি শুধু সেই সেদিনের মালী নেই 
কত স্বপ্নের রোদ ওঠে এই কফি হাউজে কত স্বপ্ন মেঘে ঢেকে যায় 
কতজন এলো গেল কতজনই আসবে কফি হাউজটা শুধু থেকে যায়।। 

যুগের সাথে সাথে বন্ধুত্বের বহিঃপ্রকাশে এখন অনেক পরিবর্তন আসছে। সবাই মিলে যেখানেই যায় একটা সেলফি তুলতে হবে। গ্রুপ ছবি তুলে ফেসবুকে আপলোড দেওয়া। খাওয়া দাওয়া করা। সেই খাবারের ছবি তুলে আপলোড করা। এসব চলছেই। তবে বিকেল বেলা বন্ধুরা একসাথে মাঠে খেলাধুলা করা, সন্ধ্যার পর হেরে গলায় সবাই মিলে গান গাওয়া এসবের মাঝে রয়েছে অন্য রকম একটা আনন্দ।

ছেঁড়া ঘুড়ি, রঙ্গিন বল 
এইটুকুই সম্বল 
আর ছিল রোদ্দুরে পাওয়া 
বিকেল বেলা। 
বাজে বকা রাত্রি দিন 
অ্যাস্টেরিক্স টিনটিন 
এলোমেলো কথা উড়ে যেত 
হাসির ঠেলায় 

সে হাসি ছুটে যেত গোধুলি মিছিলে 
সবার অলক্ষ্যেতে তুমিও কি ছিলে 
সে হাসি ছুটে যেত গোধুলি মিছিলে 
সবার অলক্ষ্যে তুমিও কি ছিলে 
হাওয়ায় হাওয়ায় 
হাওয়ায় হাওয়ায় 

বন্ধু তোমায় এ গান শোনাবো বিকেল বেলায় 
বন্ধু তোমায় এ গান শোনাবো বিকেল বেলায় 
আর একবার যদি তোমাদের দলে নাও খেলায় 
বন্ধু তোমায় এ গান শোনাবো বিকেল বেলায়। 

পহেলা বৈশাখ, পহেলা ফাল্গুন কিংবা বিভিন্ন উৎসবে একসাথে বন্ধুরা মিলে আনন্দ করাই শুধু নয়, আজকাল সামাজিক অনলাইন মিডিয়ায় আমরা বন্ধুরা মিলে অনেক ভালো ভালো কাজ করছি। শীতার্তদের কম্বল বিতরণ, কারো রক্ত লাগবে তার জন্য রক্তের জোগাড় করা, অসুস্থ কারো জন্য ফান্ডিং করা এরকম অনেক মহৎ কাজ করা হচ্ছে।

কতো এলো মেলো হেঁটেছি দু’জন 
হাত ছিলনা তো হাতে 
ছিলো যে যার জীবনে দু’টো মন ছিল 
জড়াজড়ি এক সাথে।

কেন বাড়লে বয়স 
ছোট্ট বেলার বন্ধু হারিয়ে যায় 
কেন হারাচ্ছে সব, বাড়াচ্ছে ভীড় 
হারানোর তালিকায়। 

বন্ধুরা মিলে এলাকায় একটা ডিকেটটিভ ক্লাব করব, এলাকার চোর-ডাকাত ধরব। একটা পাঠাগার করব যেখানে সবাই এসে বই পড়বে। একটা শক্তিশালী ক্রিকেট-ফুটবল টিম করব, অন্য কোন এলাকার ছেলেরা আমাদের সাথে পারবে না। এসব স্বপ্ন ছোটবেলায় খুব দেখা হত। বন্ধুরা মিলে অনেকে এসব করেও ফেলত। তার কতটা সফল হত সে আলোচনা থাক। কিন্তু এই বিষয়টা সত্যিই খুব দারুণ ছিল।

যাচ্ছে সময়, যায় যে চলে 
চিলেকোঠায়, চার দেয়ালে 
এসো তুমি আসবে বলে 
হাতটা ধরে দূরে চল। 

প্রতি বছর আগস্টের প্রথম রবিবার আমাদের দেশে পালিত হয় বন্ধু দিবস। আমার কাছে এ দিবস খুব উল্লেখ্যযোগ্য কিছু না। আমার সব বয়সী বন্ধুরা আমার প্রাণে থাকে সারাটি বছর জুড়ে। তবুও এই দিনটি একটু স্পেশাল। বন্ধুদের জন্য একটি দিন। বন্ধুত্বের একটি দিন। বন্ধু নিয়ে বাংলা ভাষায় রচিত কিছু গান ও কবিতার লাইন নিয়ে এই লেখাটি লিখলাম। একটা কথা খুব বলতে চাই……..

একটাই কথা আছে বাংলাতে 
মুখ আর বুক বলে একসাথে 
সে হলো.. 
বন্ধু, বন্ধু আমার… বন্ধু আমার… বন্ধু আমার 

একমার গর্ভেতে জন্ম না হয় 
বন্ধুকে বলি তবু নিজেরই যে ভাই 
রক্তের ব্যবধান তুচ্ছ যে তাই 
হৃদয়ের এত মিল রয়ে গেছে যাতে 
তুমি যে বন্ধু, বন্ধু আমার। 

 

ছবি কৃতজ্ঞতাঃ মৌরিতা দাশ স্পর্শ।